মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

কৃষি তথ্য সার্ভিস

এ সময় উত্তরাঞ্চলে ঘন কুয়াশা ও শৈত্য প্রবাহের ফলে ফসলের উপর ক্ষতির প্রভাব পড়তে পারে। প্রচন্ড ঠান্ডা ও ঘন কুয়াশার কবল থেকে বোরো ধানের বীজতলাসহ বিভিন্ন মাঠফসল রক্ষা করা জরূরী হয়ে পড়েছে। বোরো বীজতলাঃ প্রতিদিন বোরো ধানের বীজতলা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করূন। শৈত্য প্রবাহকালীন সময়ে শুকনো বীজতলা প্রতিদিন সকাল ১০টা হতে সন্ধ্যা পর্যšত স্বচ্ছ পলিথিন দিয়ে বীজতলা ঢেকে রাখতে হবে। ভেজা বীজতলার সকাল বেলা ২ থেকে ৩ ইঞ্চি পানি (চারা ডুবে না যায়) দিতে হবে এবং সন্ধ্যায় পানি বের করে দিতে হবে। শৈত্য প্রবাহের আগে বীজতলায় বীজ বুনতে হবে যাতে ঠান্ডার প্রকোপ থেকে চারা রক্ষা পায় । বীজতলা সকালবেলা রশি টানা দিয়ে চারা থেকে কুয়াশার পানি ফেলে দিন এব রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য প্রতি শতাংশের জন্য ৫০ গ্রাম হারে ১বার পটাশ সার প্রয়োগ করুন। এসময় ইউরিয়া সারের উপরি প্রয়োগ বন্ধ রাখুন। বীজতলায় সেচের পানি থাকলে বের করে দিন। অতিরিক্ত ঠান্ডায় বীজতলায় ছাই ছিঠিয়ে তাপমাত্রা ধরে রাখা যায়। কাজেই এ অবস্থায় বীজতলায় ছাই ছিটাতে পারেন। শৈত্য প্রবাহকালীন সময়ে বীজতলার চারা উত্তোলন না করাই উত্তম। আলু ও টমেটো ঘন কুয়াশা ও ঠান্ডায় আলু ও টমেটো ক্ষেত লেটব¬াইট বা নাবিধসা রোগে আক্রান্ত হতে পারে। এরুপ আবহাওয়ায় আলু ও টমেটো ফসলে প্রতিরোধক হিসেবে বোর্দোমিকচার অথবা মেনকোজেব জাতীয় ছত্রাকনাশক ১ লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে ৭ দিন পর পর প্রয়োগ করতে হবে। এ রোগের আক্রমণ দেখা দেয়ার সাথে সাথে আক্রান্ত গাছ তুলে মাটি দিয়ে চাপা দিতে হবে অথবা পুড়ে ফেলতে হবে। আক্রান্ত হওয়ার আগে প্রতি লিটার পানিতে সিকিউর নামক ছত্রাকনাশক ১ গ্রাম এবং মেলোডিডুও ২ গ্রাম একত্রে মিশিয়ে ৭ থেকে ১০ দিন পর পর ¯েপ্র করতে হবে। সরিষা ও শিম এসময় সরিষা ও শিম গাছে জাব পোকার প্রাদুর্ভাব দেখা দিতে পারে। যে কোন জৈব বালাইনাশক যেমন নিমবিসিডিন, বিষকাটালির রস প্রতি লিটার পানিতে ৪ মিলি হারে পোকা দমনের জন্য প্রয়োগ করতে হবে। আক্রমনের তীব্রতা অতিমাত্রায় বেড়ে গেলে এমিটাফ, টিডো বা এডমায়ার নামক ছত্রাকনাশক ০.৫ মিলি প্রতি লিটার পানিতে মিশিয়ে ¯েপ্র করূন। আমের মুকুল ঘন কুয়াশার কারণে আম গাছের মুকুল নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশস্কা রয়েছে। এরূপ আবহাওয়ায় আম গাছে প্রতিরোধক হিসাবে বর্দোমিকচার অথবা সালফারঘটিত ছত্রাকনাশক যেমন- থিওভিট ৮০ ডবি¬উ জি প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম হারে মিশিয়ে প্রয়োগ করতে হবে। এছাড়া এরূপ আবহাওয়ায় শোষক পোকার (হপার) বংশ দ্রুত বৃদ্ধি ঘটতে পারে তাই গাছের কান্ডে ও পাতায় সাইপারমেথ্রিন ১০ ইসি বা ল্যামডা সাই হ্যালাথ্রিন ২.৫ ইসি বা ফেন ভেলোরেট ২০ ইসি গ্রুপের যেকোন কীটনাশক প্রতি লিটার পানিতে ১ মিলি হারে ¯েপ্র করতে


Share with :

Facebook Twitter